বিয়ের চৌদ্দ বছর পরে নিজের স্বামীকে আবার বিয়ে করেছেন বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত বৃটিশ, গ্রেট বৃটিশ বেক অফ চ্যাম্পিয়ন নাদিয়া হোসেন। এখন থেকে ১৪ বছর আগে পারিবারিকভাবে বাংলাদেশে তার বিয়ে হয়েছিল আবদাল হোসেনের সঙ্গে। নাদিয়ার হাতে উঠেছে ১৫৯ পাউন্ড দামের নতুন সারাওয়াস্কি ডিজাইনের বিয়ের আংটি। নতুন করে বিয়ের ঘোষণা দিয়ে তিনি নিজেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট দিয়েছেন। এ খবর দিয়েছে লন্ডনের অনলাইন টেলিগ্রাফ।
১৪ বছর আগে ২০০৪ সালে যখন নাদিয়া প্রথম তার স্বামী আবদাল হোসেনকে দেখেন তখন আবদাল তার কাছে ছিলেন \\\\\\\’পুরোপুরি একজন অচেনা\\\\\\\\ মানুষ। নাদিয়ার বয়স এখন ৩৩ বছর। তার বয়স যখন ১৯ বছর তখন বাংলাদেশে ইসলামিক রীতি অনুযায়ী তার বিয়ে হয়েছিল।
পরিবারের সাথে নাদিয়া। ছবিটি ২০১৬ সালের
ওই বিয়ের আগে হবু স্বামী আবদালের সঙ্গে তার মাত্র একবারই দেখা হয়েছিল। নাদিয়া এরপর ২০১৫ সালে বৃটেনে গ্রেট বৃটেন বেক অফ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হন। স্বামী আবদাল হোসেনের ঔরসে তার রয়েছে তিনটি সন্তান। তারা ১২ বছর বয়সী মুসা, ১১ বছর বয়সী দাউদ ও ৮ বছর বয়সী মরিয়ম।
এ বছরের শুরুর দিকে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন নাদিয়া। তাতে তিনি বৃটেনে বৃটিশ আইন অনুযায়ী তাদের বিয়ে রেজিস্টার করানোর পরিকল্পনার কথা প্রকাশ করেন। তিনি তখন বলেছিলেন, আমরা ইসলামিক নিয়ম মেনে বিয়ে করেছিলাম (বাংলাদেশে)। কিন্তু বৃটেনের রীতি মেনে তা করা হয় নি কখনো।
নাদিয়া তাই নতুন করে বৃটিশ নিয়মে সম্প্রতি বিয়ে করেছেন আবদাল হোসেনকে। এ বিষয়ে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেই ঘোষণা দিয়েছেন। প্রকাশ করেছেন ওই আংটি। এই আংটিকে ইংরেজিতে এভাবে বর্ণনা করা হয়েছে, \\\\\\\’স্পার্কলিং নট টু রিপ্রেজেন্ট দ্য ইউনিক বন্ড বিটুইন টু পিপল\\\\\\\’।
ইন্সটাগ্রামে নাদিয়া হোসেন লিখেছেন, অভিনব কিছুই নয়, শুধু ভালবাসা। কোন ঝালর পরানো নেই। শুধুই আমরা। আমরা আবার (বিয়েটা) করলাম। আমি করলাম। সব সময়ই আমি এই বিয়েকে স্বীকৃতি দিই। আমি এটা আবার করলাম#বিয়ে#দ্বিতীয়বার।
নাদিয়ার এমন পোস্টের জবাবে তার স্বামী লিখেছেন, এখন তুমি আমাকে ছেড়ে দূরে যেতে পারবে না। আমি তোমাকে অসীম মাত্রায় এবং সীমাহীন ভালবাসি।