বাংলাদেশের স্বাধীনতা এবং সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশে এসেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশে আসার পর থেকেই মোদি বিরোধী আন্দোলন শুরু হয়েছিল হেফাজতে ইসলামসহ বেশ কয়েকটি ইসলামী দলগুলোর মধ্যে তারা চাইনি মোদি বাংলাদেশের আসুক এবং কোনো কর্মসূচিতে অংশ নিতে যদিও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ছাড়াও পার্শ্ববর্তী কয়েকটি দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ বাংলাদেশে এসেছে তবে তাদের নিয়ে কোন রকম কোন কথা হয়নি

আরো পড়ুন

Error: No articles to display



হরতালে না’শ’ক’তা ও হা’ম’লা’র মামলায় হেফাজতে ইসলামের নেতাদের নাম না থাকার বিষয়ে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ’যারা অনস্পট ছিল তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আমাদের দেশে কোনও কাজ হলে দশ রকম কন্ট্রোভার্সি হয়। আমরা এক্ষেত্রে চাইনি এরকম কিছু হোক। তদন্ত চলছে। তদন্তে হেফাজত নেতাদের বা নির্দেশদাতাদের নাম এলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমরা কাউকে বাদ দেইনি।’

বুধবার (৩১ মার্চ) ঢাকার সিএমএইচে চিকিৎসাধীন আ’হ’ত পুলিশ সদস্যদের দেখতে গিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, ’গত ২৬ মার্চ আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের দিন হেফাজত সারা দেশে তা’ণ্ড’ব চালায়। প্রথমে বায়তুল মোকাররম, পরবর্তীতে চট্টগ্রামের হাটহাজারী থেকে। আমাদের কোমলমতি মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের ব্যবহার করা হয়েছে। হাটহাজারী থানায় মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা আক্রমণ করেছে। এর আগেও এই থানায় তারা আক্রমণ চালিয়েছে। ভূমি অফিসে আক্রমণ করেছে। ডাকবাংলোতে আক্রমণ করেছে। ভূমি অফিসের সব কাগজপত্র একত্রিত করে জ্বালিয়ে দিয়েছে। এতে ওই অঞ্চলের মানুষ বছরের পর বছর কষ্ট পাবে।’

মুজিব শতবর্ষ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন পার্শ্ববর্তী কয়েকটি দেশের প্রধানমন্ত্রী সহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গরা সেইসাথে আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশের এই সুবর্ণ জয়ন্তী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে আসছেন এটা জেনে তার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় হেফাজত ইসলাম

News Page Below Ad

আরো পড়ুন

Error: No articles to display