বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের পরিচালক পদে নিয়োগ পান খন্দকার সাজ্জাদুর রহিম। অন্যদিকে, বিমানে প্রধান প্রকৌশলী পদে স্থায়ী নিয়োগ পান গাজী মাহমুদ ইকবাল।খন্দকার সাজ্জাদুর রহিম প্রকৌশল বিভাগের পরিচালক পদে নিয়োগ পাওয়ার আগে ২০১৭ সালের ২ মে থেকে ২০১৮ সালের ৪ এপ্রিল পর্যন্ত এ পদে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন গাজী মাহমুদ ইকবাল।



চুক্তিতে নিয়োগ পাওয়া বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের প্রকৌশল বিভাগের পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত গ্রুপ ক্যাপ্টেন খন্দকার সাজ্জাদুর রহিমের নিয়োগ বাতিল করা হয়েছে। ইঞ্জিনিয়ারিং সার্ভিসের প্রধান প্রকৌশলী গাজী মাহমুদ ইকবালকে করা হয়েছে সাময়িক বরখাস্ত। দায়িত্তে চরম অবহেলার কারণে গতকাল এই দুজনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে বিমান পরিচালনা পর্ষদ।

বিমানের নির্ভরযোগ্য সূত্র এসব তথ্য দিয়ে বলেছে, ২০১৮ সালের ৩০শে এপ্রিল চুক্তিতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের পরিচালক পদে নিয়োগ পান খন্দকার সাজ্জাদুর রহিম। একের পর এক বিমানের ফ্লাইটে ক্রটি ধরা পড়লেও এ বিষয়ে তিনি কার্যত কোন ব্যবস্থা নিতে পারেননি। জরুরি অবতরণ করতে হয়েছে বেশ কয়েকটি ফ্লাইটের। সর্বশেষ বিমানের হজ্জ ফ্লাইটে ক্রটি পাওয়ায় নির্ধারিত সময়ে বেশ কিছু হাজিদের দেশে ফেরত আনা সম্ভব হাচ্ছে না।

সূত্র জানায়, চলতি বছর হজযাত্রী পরিবহনে বিমান নিজস্ব চারটি বোয়িং ৭৭৭-৩০০ইআর উড়োজাহাজ ব্যবহার করছে। এসব উড়োজাহাজের প্রতিটি ৪১৯ জন যাত্রী পরিবহনে সক্ষম।
একটি উড়োজাহাজ বিকল হয়ে যাওয়ায় যাত্রীরা নির্ধারিত ফ্লাইটে ফিরতে পারবেন না। ফলে দুর্ভোগে পড়বেন তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিমান কর্মকর্তা বলেন, কোরবানির ঈদের আগে এই উড়োজাহাজটির একটি ইঞ্জিন বিকল হলে তা বদলে নতুন ইঞ্জিন লাগানো হয়েছিল। দুদিন আগে আরেকটি ইঞ্জিন বিকল হয়। নতুন ইঞ্জিন এনে সংযোজন করতে কতটা সময় লাগতে পারে এ বিষয়ে স্পষ্ট কেউ কিছু বলতে পারেননি।

অন্যদিকে একই সময়ে বিমানে প্রধান প্রকৌশলী পদে স্থায়ী নিয়োগ পেয়েছিলেন গাজী মাহমুদ ইকবাল।

সূত্র জানায়, উড়োজাহাজ লিজ ক্যালেংকারির সাথে জড়িয়ে পড়েছে প্রধান এই প্রকৌশলীর নাম। ইজিপ্ট এয়ার ওয়েজের দুটো উড়োজাহাজ লিজ নেয় বিমান। লিজের পুরো কাজটি করেন প্রধান প্রকৌশলী। কিন্তু বার বার গ্রাউন্ডেড থাকতে হয়েছে উড়োজাহাজ দুটিকে। ভিয়েতনামে পড়ে আছে এই দুটো উড়োজাহাজ। প্রতিমাসে মাসে বিরাট অংকের গচ্চা দিতে হচ্ছে বিমানকে।

উল্লেখ্য,২০১৪ সালে মিশরীয় বিমান সংস্থা ইজিপ্ট এয়ার থেকে বোয়িং ট্রিপল সেভেন ই.আর মডেলের দুটি উড়োজাহাজ লিজ নেয় বাংলাদেশ বিমান। ৫ বছরের ওই চুক্তির শর্ত ছিল, যেভাবে উড়োজাহাজ নেয়া হয়েছে ফেরত দিতে হবে সে অবস্থায়।কিন্তু ইঞ্জিন সমস্যাসহ নানা কারিগরি জটিলতায় আয় তো দূরের কথা, বারবার বিকল হয়ে এখন বিমানের গলার কাঁটা উড়োজাহাজ দুটি। দফায় দফায় মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণে এরই মধ্যে ব্যয় হয়েছে ১৩ কোটি টাকা। আর গেল এক বছর ধরে দুটিই বিকল অবস্থায় পড়ে আছে ভিয়েতনামে।