ডা. দীপু মনি একজন বাংলাদেশী নারী রাজনীতিবিদ, বাংলাদেশ সরকারের বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী এবং সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগের জয়লাভের পর বাংলাদেশের প্রথম মহিলা পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে তিনি নিয়োগ পান। তিনি দশম সংসদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ছিলেন।

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির স্বামী ব্যারিস্টার ড. তৌফিক নেওয়াজ অসুস্থ। রাজধানী ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসার পর তিনি এখন দিল্লীর একটি হাসপাতালে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।

এর মাঝেও দীপুমনি যেমন তার দাপ্তরিক দায়িত্ব পালনে অবহেলা করছেন না তেমনি স্বামীর পাশে থাকতেও কার্পণ্য করছেন না। তাকে রীতিমতো ঢাকা দিল্লী ছোটাছুটি করতে হচ্ছে। ছোটাছুটির ফাকেই প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তাকে সান্তনা দিচ্ছেন সাহস যোগাচ্ছেন। ব্যারিস্টার তৌফিক নেওয়াজের শারীরিক অবস্থার খোঁজ খবর নিচ্ছেন। স্বামীর এই মৃত্যুর সন্দিক্ষণে দীপুমনি বিপর্যস্ত হলেও কঠিনভাবে হাল ধরছেন মন্ত্রণালয়ের।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক দলের কর্মকাণ্ডে থাকছেন নিয়মিত। বিভিন্ন নেতারা তার কাছে বিভিন্ন সময়ে তৌফিক নেওয়াজের খবর জানতে চাচ্ছেন। এ সময় উঠে আসছে নানা স্মৃতি নানা আলাপচারিতা। এমন একটি স্মৃতি আবেগপীড়িত করেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের।


অসুস্থ তৌফিক নেওয়াজের পাশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি
স্মৃতিচারণটি এরকম, দীপুমনি জানাচ্ছিলেন যে, তার সংসার জীবনে তিলতিল করে টাকা জমিয়ে একটা পর্যায়ে বড় অঙ্কের টাকা জমে যায়। টাকার অংকটা এমন ছিল যে, সেই সময় ইস্কাটন- মগবাজার এলাকায় একটা ফ্ল্যাট কেনা যায়। দীপুমনির কাছে ঠিক সেই সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন হপকিংস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাবলিক হেলথে উচ্চ শিক্ষার জন্য ভর্তির সুযোগের চিঠিটি এলো। দীপুমনি তার স্বামীর পরামর্শ নিলেন।

সে সময় দীপুমনি দ্বিধান্বিত যে তিনি কি করবেন? যে জমানো টাকা আছে যদি জন হপকিংসে পড়াশুনার জন্য যান তাহলে তা খরচ করতে হবে। হবে না পছন্দের ফ্ল্যাটটি কেনা। দ্বিধান্বিত দীপুমনি এই সময় তিনি স্বামীর স্বরণাপন্ন হলেন। স্বামী তাকে বললেন, জীবনে বেঁচে থাকলে ফ্ল্যাট কেনা যাবে। কিন্তু এরকম সুযোগ জীবনে আসবে না। তিনি তখন তাকে বললো যে তুমি চোখ বন্ধ করে জন হপকিংসে পড়াশুনার জন্য যাও। সেখানে দীপুমনি পাবলিক হেলথের উপর উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন। যেটা তার ক্যারিয়ারের একটা মাইলফলক।

প্রসঙ্গত,শিক্ষামন্ত্রীর স্বামী বিশিষ্ট আইনজীবী ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এর ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য ড. তৌফিক নেওয়াজ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা তাকে আইসিইউতে নেন।