বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের মানুষও বেশ চিন্তায় পড়েছে করোনাভাইরাস আতঙ্কে। এর কারণ হলো ইতিপূর্বে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আক্রান্ত হলেও বাংলাদেশ আক্রান্ত কারো খবর মেলেনি কিন্তু গতকাল ঢাকা নারায়ণগঞ্জে একই পরিবারের তিনজন প্রাণঘাতি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা যায়। কি খবর ছড়িয়ে পড়েছে সারা দেশে এবং এরপর থেকেই মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। অনেকেই সতর্কতামূলক নিয়ম-কানুন এখন থেকেই মেনে চলা শুরু করেছেন

আরো পড়ুন

Error: No articles to display




দেশে করোনা আক্রান্ত ৩ জনের সংস্পর্শে এসেছে এমন ৪০ জনকে কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য সচিব।
সোমবার (০৯ মার্চ) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সচিবালয়ে এসব তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম ও স্বাস্থ্য সচিব মোহাম্মদ আসাদুল ইসলাম।
স্বাস্থ্য সচিব বলেন, স্কুল-কলেজ বন্ধ করার মতো অবস্থা এখনো সৃষ্টি হয়নি। তবে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আপাতত বড় ধরনের জমায়েত এড়িয়ে চলতে হবে। সবাইকে সাবধান থাকতে হবে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, স্কুল-কলেজ বন্ধের প্রয়োজনীয়তা, আক্রান্ত দেশগুলোর সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করার মতো বিষয়সহ সার্বিক আরও সিদ্ধান্ত বিকেল ৪টার সভায় জানানো হবে।
এর আগে দুপুর সাড়ে ১২টায় জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, দেশে নতুন করে কারও শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়নি। গেল ২৪ ঘণ্টায় চারজনের নমুনা সংগ্রহ করা হলেও তাদের কারও শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়নি।



বিশ্বে প্রতিনিয়ত বাড়ছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। এশিয়ার বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পড়েছে এই মহামারী ভাইরাসটি। ইতিমধ্যে তিনজনের আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে এবং ওই পরিবারের আশপাশে থাকা ৪০ জনকে কোয়ারেন্টাইন এ পাঠানো হয়েছে। জানা যায় যে আক্রান্ত ব্যক্তিরা বিদেশফেরত ছিল। তবে বিদেশ থেকে যারা বাংলাদেশে আসছেন তাদেরকে যথাযথভাবে ভাইরাস সনাক্তকারী মেশিনের মাধ্যমে স্ক্যান করে আনা দরকার

News Page Below Ad

আরো পড়ুন

Error: No articles to display