কিছুদিন আগেই কাজী মুহাম্মদ মইনুল আলম (৩৬) এবং ফারহানা ইসলাম তানিয়া (৩০) কলকাতা গিয়েছিলেন ডাক্তার দেখাতে।সেখানেই তাদের শেষ নিস্বাস ত্যগ করতে হল। রেস্তোরা মালিকের ছেলের জাগুয়ার গাড়ির চাকায় পিষ্ট হন এই দু জন।কাজী মুহাম্মদ মইনুল আলমের বাড়ি ঝিনাইদহে এবং ফারহানা ইসলাম তানিয়ার বাড়ি ঢাকার মোহাম্মদপুরে।


ক্যাসিনো থেকে আটক হলেন কলকাতায় দুই বাংলাদেশিকে গাড়িচাপা দেয়া ঘটনায় ঘাটতের বাবা পারভেজ আখতার।

শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রাতে শেক্সপিয়র সরণির একটি রেস্তোরাঁর ক্যাসিনো থেকে পারভেজ আখতারকে আটক করে কলকাতা পুলিশ।

সেই জুয়ার আসর থেকে আরও পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম।

গত ১৭ আগস্ট রাত আড়াইটায় শেক্সপিয়র সরণি থানার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা মার্সেডিজ গাড়িতে জাগুয়ার নিয়ে ধাক্কা মারেন হোটেল আরসালানের মালিক পারভেজ আখতারের ছেলে রাঘিব।

এ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান কাজী মুহাম্মদ মইনুল আলম (৩৬) এবং ফারহানা ইসলাম তানিয়া (৩০) নামে বাংলাদেশের দুই নাগরিক।

সেই ঘটনায় প্রথমে আরসালান পারভেজকে আটক করা হলেও পরে তার ভাই রাঘিব ও মামা মহম্মদ হামজাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এবার জুয়া খেলতে গিয়ে আটক হলেন তাদের বাবা পারভেজ আখতার।

জানা গেছে, প্রতি বছর পূজার আগে কলকাতাসহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন ক্লাব, রেস্তোরাঁয় অভিযান চালানো হয়। খোঁজ করে বন্ধ করে দেয়া হয় সেসব রেস্তোরাঁ আর ক্লাবের জমজমাট অবৈধ ক্যাসিনো।

সেই ধারাবাহিকতায় শনিবার রাতে কলকাতা শহরে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ।

এদিন শেক্সপিয়র সরণির তিনটি রেস্তোরাঁয় হানা দেন কলকাতা পুলিশের অপরাধ দমন শাখার সদস্যরা। এই তিন রেস্তোরাঁর মধ্যে পারভেজ আখতারের রেস্তোরাঁটিও ছিল।

কলকাতা পুলিশের এক শীর্ষ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, নিজের রেস্তোরাঁতেই বসে জুয়া খেলছিলেন পারভেজ আখতার। পাঁচ সঙ্গী নিয়ে ’পোকার’ নামে একটি খেলা খেলছিলেন তিনি। এ সময় তাকে হাতেনাতে ধরে কলকাতা পুলিশ।

পারভেজ আখতার ও তার পাঁচ সঙ্গীকে হেফাজতে নিয়ে জেরা করছে পুলিশ।


উল্লেখ্য, আরসালান পারভেজরা দুই ভাই। দুজনেই বিদেশে পড়াশোনা করতে গিয়েছিলেন। ২০১৪-২০১৮ সাল পর্যন্ত পারভেজ এডিনবরা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজনেস ম্যানেজমেন্টে পড়াশোনা করেছেন। কলকাতার পার্ক সার্কাস মোড়ের ’আরসালান’ নামের রেস্তোরাঁর একটি শাখার মালিকানাও আরসালান পারভেজের নামে রয়েছে। সায়েন্স সিটির সামনে একটি বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্টে থাকতেন তিনি