শিক্ষা হচ্ছে জাতির আলো আবার অন্যভাবে বললে শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষা ছাড়া কোন জাতি উন্নতি করতে পারে না শিক্ষা মানুষকে মূল্যবোধ শিক্ষায় মানুষকে প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করে এবং মানুষের মধ্য থেকে তার প্রকৃত মনুষত্ব কে বের করে আনতে চেষ্টা করে প্রকৃত শিক্ষা অর্জনের ফলে মানুষ সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় এবং কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছায় শিক্ষা গ্রহণের ফলে যে মানুষ নিজের প্রকৃত হয় তা কিন্তু নয় তার সাথে দেশ ও জাতির সম্মান ও জড়িয়ে যায় প্রকৃত শিক্ষিত মানুষদের মধ্যে মনুষ্যত্বের অভাব থাকে না।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display




জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক-২০১৯ এ কাপ্তাই উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক (মহিলা) নির্বাচিত হয়েছেন কাপ্তাই উপজেলা সদর বড়ইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খালেদা আক্তার এবং শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক (মহিলা) নির্বাচিত হয়েছেন চন্দ্রঘোনা বি এম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রওশন শরীফ তানি। সম্পর্কে তারা মা- মেয়ে।


কাপ্তাই উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পরীক্ষার পর এই নির্বাচন করা হয় বলে জানিয়েছেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা খুরশীদুল আলম চৌধুরী। কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেল এই কমিটির সভাপতি এবং উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা খুরশীদ আলম চৌধুরী কমিটির সদস্য সচিব হিসেবে কমিটির অন্যান্য সদস্যদেরকে নিয়ে এই নির্বাচন সম্পন্ন করেন।

শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক (মহিলা) খালেদা আক্তার ২০১৩ সালে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক এবং ২০১৬ সালে রোকেয়া দিবসে শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য জয়িতা নারী সম্মানে সম্মানিত হন। এছাড়া তিনি একজন সংস্কৃতি অনুরাগী হিসেবে উপজেলার বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন দীর্ঘদিন ধরে। দীর্ঘ ৩৩ বছরের শিক্ষকতা জীবনে তিনি কাপ্তাইয়ের বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথমে সহকারী শিক্ষক হিসেবে ৯ বছর শিক্ষকতা করেছেন এবং পরবর্তী সময় ১৯৯৬ সালে তিনি প্রধান শিক্ষক হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে অদ্যাবধি সততা, দক্ষতা এবং নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তার অসংখ্য শিক্ষার্থী সরকারের উচ্চপদস্থ বিভিন্ন পদে আসীন রয়েছেন।

এ দিকে তারই মেয়ে বি এম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রওশন শরীফ তানি প্রাথমিক শিক্ষা পদক কাপ্তাই উপজেলা পর্যায়ে মহিলা ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছেন। রওশন শরীফ তানি শিক্ষকতার পাশাপাশি একজন সংগীত শিল্পী হিসেবে এতদঞ্চলে বেশ জনপ্রিয়। তিনি বাংলাদেশ বেতারের রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী হিসেবে তালিকাভুক্ত। এছাড়া তিনি আবৃত্তি ও উপস্থাপনায় সমান পারদর্শী।

শ্রেষ্ঠ সহকারী শিক্ষক (মহিলা) রওশন শরীফ তানি কাপ্তাই উপজেলা শিল্পকলা একাডেমি, সাংস্কৃতিক একাডেমি, উদীচী, কাপ্তাই আবৃত্তি একাডেমিসহ অনেক সংগঠনের সঙ্গে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন। এছাড়া তিনি লোকসংগীত ও রবীন্দ্র সংগীতে জাতীয় পুরস্কার অর্জন করেছেন এবং আর্ন্তজাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে জাতীয় পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তিনি অংশ নিয়েছেন।


শিক্ষা মানুষকে আলোর পথে নিয়ে যায় একটি জাতিকে সুশীল হিসেবে গড়ে তোলে এই শিক্ষাকে মানুষের মধ্যে ছড়াতে যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করেন তারাই হচ্ছেন শিক্ষক যাদের অবদান এবং তাদের মর্যাদা সব থেকে বেশি শিক্ষকদের জাতির অভিভাবক বললে কথাটা ভুল হয় না। মানুষের মধ্যে শিক্ষার আলো ছড়ানো মূল্যবোধ এবং মনুষ্যত্ব এর বীজ বপন করে দেন শিক্ষকরা। তাদের এই ক্লান্ত পরিশ্রম এবং কষ্টের ফল স্বরূপ যে সম্মান পাওয়ার কথা অনেক সময় তারা পাননা

News Page Below Ad

আরো পড়ুন

Error: No articles to display