বরগুনার আলোচিত রিফাতের ঘটনা যিনি মূল আসামি অর্থাৎ নয়ন বন্ড তিনি অনেক আগেই চলে গেছেন না ফেরার দেশে তবে এ মামলার অন্যান্য যারা আসামি রয়েছেন অর্থাৎ এ ঘটনার সহযোগী যারা তারা এবার শাস্তি পেতে চলেছেন। আজকে এই মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে এবং সেখানে রিফাত শরীফের স্ত্রী মিন্নি সহ আরো অন্যান্যরা এ শাস্তির আওতায় পড়েছেন এবং আদালত তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করেছে

আরো পড়ুন

Error: No articles to display



রায় শুনে.. রিফাত ফরাজীসহ অন্য আসামিরা অঝোরে কাঁদছিলেন। আসামিরা একে অপরকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন। অন্যদিকে, খালাস পাওয়া উপস্থিত তিন আসামি কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে এক অপরকে জড়িয়ে ধরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। তবে মামলার অন্যতম আসামি মিন্নিকে এ সময় স্বাভাবিক দেখা গেছে।

রায় ঘোষণা শেষে উপস্থিত ৯ আসামির মধ্যে মিন্নিকে আগে বের করে আনে পুলিশ। এ সময় আদালতের বাইরে মিন্নির জন্য অপেক্ষমাণ ছিলেন তাঁর বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর। তিনি মেয়েকে দেখেই কান্না শুরু করে দেন। মিন্নি বাবাকে দেখে না কাঁদলেও নির্বাক ছিলেন। এরপর একে একে অন্য আসামিদের আদালত থেকে বের করে আনা হয়।

রিফাত শরীফের সাথে প্রেমের সম্পর্কে জোড়ায় আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি এর পর তাদের মধ্যে বিবাহ সম্পন্ন হয় পরিবারের সম্মতি নিয়ে কিন্তু পরবর্তীতে মিন্নিকে রিফাত তার বন্ধুদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন এবং ওদের মধ্যে ছিল আলোচিত সেই নয়ন বন্ড এরপর নয়ন বন্ড মিন্নি বিভিন্ন প্রস্তাবিত তবে সেখান থেকেই মূলত দুজনের মধ্যে দ্বন্দ্ব বেঁধেছিলো

News Page Below Ad

আরো পড়ুন

Error: No articles to display