ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে বর্তমান সময়ে অনেক নেতাকর্মীরা অসৎ কাজে লিপ্ত হচ্ছে জনগণের স্বার্থে কাজ না করে নিজেদের স্বার্থ কিভাবে ধরে রাখা যায় সেটা নিয়ে ব্যস্ত তারা। অনেকেই আছেন যারা আবার একেবারে জিরো থেকে হিরো হয়ে গেছেন অর্থাৎ অসচ্ছল থেকে রীতিমতো কোটিপতি বনে গিয়েছেন শুধুমাত্র ক্ষমতার ছায়াতল এসে দিনের পর দিন সাধারণ মানুষের চোখে ধুলো দিয়ে তারা তাদের কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন এবং সেগুলো যেন দেখার কেউ নেই

আরো পড়ুন

Error: No articles to display



চট্টগ্রামের পতেঙ্গা দক্ষিণ পাড়ার নুরুল আবছার। এক সময় নৌকা চালিয়েই জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু তার ভাগ্য বদলে যায় নদীর ওপাড়ের নিষিদ্ধ দ্রব্য ব্যবসায়ী জাফরের সঙ্গে পরিচয় হওয়ার পর।

জানা গেছে, নৌকা দিয়ে জাফরের নিষিদ্ধ দ্রব্য পরিবহন করতেন নুরুল আবছার। এক সময় জাহাজ থেকে বিদেশি নিষিদ্ধ দ্রব্য সংগ্রহ করে বিক্রিও শুরু করেন। আনোয়ারা, কর্ণফুলী এলাকা দিয়ে আবছার তার নিষিদ্ধ দ্রব্য বেচাকেনা করতেন।

২০১৫ সালে র‌্যাবের সঙ্গে... প্রান হারানোর পর ইয়াবা ব্যবসায়ী জাফরের নিষিদ্ধ দ্রব্য সাম্রাজ্য ধরে রেখেছিলেন নুরুল আবছার। তখন থেকেই ফুলে ফেঁপে ওঠেন। রাতারাতি টাকার বিনিময়ে বাগিয়ে নেন আওয়ামী লীগের পদও। হয়ে যান আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য।

নিষিদ্ধ দ্রব্য ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় ২০১৯ সালের ৩১ জানুয়ারি নুরুল আবছারকে ওই পদ থেকে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়।

পতেঙ্গা এলাকায় নিষিদ্ধ দ্রব্য গডফাদার হলেও তিনি বরাবরই ছিলেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। ২০১৮ সালে পতেঙ্গা থানা পুলিশ ৪০ বোতল বিদেশি নিষিদ্ধ দ্রব্য নুরুল আবছারকে হাতেনাতে ধরলেও পরে জেল থেকে ছাড়া পেয়ে পুলিশ সদস্যদের করতে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। আদালতের নির্দেশে সেই মামলা তদন্ত করে দুর্নীতি দমন কমিশন।

দুদকের তদন্তে নুরুল আবছারের মামলা মিথ্যা প্রমাণিত হয়। দুদকের প্রতিবেদনে নুরুল আবছারের নিষিদ্ধ দ্রব্য ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। পরে মিথ্যা অভিযোগ করায় নুরুল আবছারের বিরুদ্ধে দুদক বাদি হয়ে মামলা দায়ের করে।

নুরুল আবছার বছর তিনেক আগে পতেঙ্গা দক্ষিণ পাড়ায় তৈরি করেন দোতলা বাড়ি। বাড়ির চারপাশে বসানো হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা। তার বাড়িতে যাওয়ার পথের মুখেও বসানো হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা, যাতে পুলিশ বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা গেলে আগে থেকে জানতে পারেন।

২০১৭ সালের ৪ জুন নুরুল আবছারের ভাই শাহেনুর অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নুরুল আবছার ও তার দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি (৭৬/১৭) করেন।


নৌকার মাঝি থেকে রীতিমতো কোটিপতি বলে গিয়েছেন চট্টগ্রামের পতেঙ্গা দক্ষিণ পাড়ার নুরুল আফসার তার ভাগ্য তাকে তুলে এনেছে কোটিপতির আসনে একটা সময় ছিল যখন তিনি নদীতে নৌকা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন কিন্তু তার ভাগ্য বদলে যায় নিষিদ্ধ দ্রব্য ব্যবসায়ী জাফরের সঙ্গে পরিচয় হবার পর থেকে

News Page Below Ad

আরো পড়ুন

Error: No articles to display