কে বা কারা ভোরে চট্টগ্রামে নিখোঁজ সোহেল তাজের ভাগ্নে সৈয়দ ইফতেখার আলম ওরফে সৌরভকে তারাকান্দা উপজেলার বটতলা মধুপুর এলাকার জামিল অটো রাইস মিলের সামনের রাস্তায় রেখে যায় ।
এর পর সৌরভ ওই মিলে গিয়ে নিজের পরিচয় দিলে মিলের ম্যানেজার সমীর সৌরভের পরিবারকে খবর দেন। পরে পরিবারের পক্ষ থেকে চট্টগ্রামের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করা হয়।
ভোর ৫টা ২০ মিনিটে চট্টগ্রাম এন্টি-টেররিজম ইউনিটের ডিসি পরিবারকে(ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার) ফোন করে জানান- তারাকান্দা উপজেলার বটতলা মধুপুর এলাকার জামিল অটো রাইস মিলের সামনে সৌরভকে পাওয়া গেছে।

পরে তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলে তাদের চাহিদা অনুযায়ী পুলিশ পাহারায় তাকে বনানীতে পরিবারের কাছে পাঠানো ব্যবস্থা করা হয়। সৌরভের শারীরিক অবস্থা ভালো এবং তিনি সুস্থ আছেন।

এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশ সুপার জানান, এ মুহূর্তে সৌরভের সঙ্গে কথা বলার মতো পরিস্থিতি হয়নি। তিনি রাইস মিলে একটি চেয়ারে বসাছিলেন।
তাকে নির্যাতন করা হয়েছে কিনা, এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পুলিশ সুপার জানান, এ ব্যাপারে সৌরভ কিছুই বলেননি, বলেছে পরে কথা বলবে। ১১ দিন কোথায় ছিল, কীভাবে ছিল- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কিছুই বলতে পারেননি। তবে তাকে আটকে রাখা হয়েছিল এটুকুই বলেছে বলে জানান তিনি।


তাকে উদ্ধারের বিষয়ে সোহেল তাজ বলেন, সৌরভকে যখন পাওয়া যায় তখন তার হাত-পা বাঁধা ছিল। গায়ে কোনো জামা ছিল না, শুধু পায়জামা পরা ছিল। তার চোখ বাঁধা ছিল।